শিরোনাম :
গোদাগাড়ীতে ১০লাখ টাকার হেরোইন-সহ ৩জন মাদক কারবারী গ্রেফতার নগরীর তালাইমারীতে গাঁজা কারকারী মল্লিক গ্রেফতার রাজশাহীতে প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু রিভার সিটি নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত রুয়েটকে স্মার্ট বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে রুপান্তর করতে হলে সকল ক্ষেত্রে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা জরুরী চিপস্ খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে ৬ বছরের নাবালিকাকে ধর্ষণ চেষ্টা: আসামি নাইম গ্রেফতার এইচএসসি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে আরএমপি’র নোটিশ জারি তানোরে ক্লুলেস হত্যা মামলার পলাতক আসামি ইকবাল গ্রেফতার কৃষিতে বির্পযয়ের আশঙ্কা তানোরে চোরাপথে আশা মানহীন সারে বাজার সয়লাব বাঘায় বাবুল হত্যা মামলায় চেয়ারম্যানসহ ৭ জনকে রিমান্ড শেষে কারাগারে প্রেরণ সিংড়ায় ক্যান্সারে আক্রান্ত ২২ ব্যক্তির মাঝে চেক বিতরণ
সিনহা হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামি প্রদীপ লিয়াকত কেমন আছেন কারাগারে

সিনহা হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামি প্রদীপ লিয়াকত কেমন আছেন কারাগারে

সিনহা হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামি প্রদীপ লিয়াকত কেমন আছেন কারাগারে
সিনহা হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামি প্রদীপ লিয়াকত কেমন আছেন কারাগারে

স্টাফ রিপোর্টার: ১ ফেব্রুয়ারি মেজর(অব) সিনহা হত্যা মামলায় প্রদীপ ও লিয়াকতকে মৃত্যুদণ্ড এবং ছয়জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল। রায় ঘোষণার সময় দুই আসামি প্রদীপ ও লিয়াকত ছিলেন নির্বিকার।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় শুনে কাঠগড়ায় কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন আসামি মোহাম্মদ আইয়াজ ও মো. নিজাম উদ্দিন। এরপরে তারা অপর যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি নন্দ দুলাল রক্ষিতকে চড়-থাপ্পড় মারতে থাকেন। এ সময় আইয়াজ বলতে থাকেন, আমাকে বাসা থেকে ধরে নিয়ে যায় নন্দ দুলাল। সে ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে আমাকে ফাঁসিয়ে দিয়েছে।

আদালত থেকে কারাগারে ফেরার পথেও প্রদীপ লিয়াকত কোনো কথা বলেননি। এরপর কারাগারের দুটি আলাদা কনডেমড সেলে রাখা হয় তাঁদের। একজন কারা কর্মকর্তা জানিয়েছেন, তাঁরা দুজন একেবারেই চুপচাপ, কারো সঙ্গে কথা বলছেন না।

কারা সূত্র জানায়, অন্য কয়েক দিনের মতো প্রদীপ ও লিয়াকতকে পরানো হয়েছে কারা পোশাক। এরপর তাদের পৃথক দুটি কনডেমড সেলে পাঠানো হয়। কারাগারের অন্য বন্দীদের মতো তাঁদের খেতে দেওয়া হয় সাদা ভাত, মাছ ও সবজি। অন্য সেলের তুলনায় কনডেমড সেল আকারে ছোট। সেলের ভেতর আলো-বাতাস তেমন থাকে না। তবে দিনের নির্দিষ্ট সময় আসামিদের সেলের বাইরে হাঁটাচলার সুযোগ দেওয়া হয়। কনডেমড সেলের আসামিরা মাসে এক দিন জেলগেটে গিয়ে দর্শনার্থীদের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পান।

গতকাল বিকেল পাঁচটার দিকে আদালত থেকে জেলা কারাগারে নেওয়ার জন্য আসামিদের যখন প্রিজন ভ্যানে ওঠানো হচ্ছিল, তখন কয়েকজন আসামি চিৎকার করলেও প্রদীপ ও লিয়াকত ছিলেন নির্বিকার। বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে জেলা কারাগারে পৌঁছানোর পরও চুপচাপ ছিলেন তাঁরা।

কক্সবাজার জেলা কারাগারের তত্ত্বাবধায়ক (জেল সুপার) মো. নেচার আলম প্রথম আলোকে বলেন, প্রদীপ ও লিয়াকত এখন সাধারণ বন্দী। দুজনকে পৃথক দুটি কনডেমড সেলে রাখা হয়েছে। তাঁরা চুপচাপ আছেন। শরীরের অবস্থাও স্বাভাবিক আছে। রাতের খাবার ও সকালের নাশতাও খেয়েছেন দুজন। বাইরের কারও সঙ্গে তাঁদের দেখা–সাক্ষাৎ হয়নি। সম্পাদনা: ঝুমুরী বিশ্বাস।

মতিহার বার্তা / ইএবি

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply