শিরোনাম :
গোদাগাড়ীতে ১০লাখ টাকার হেরোইন-সহ ৩জন মাদক কারবারী গ্রেফতার নগরীর তালাইমারীতে গাঁজা কারকারী মল্লিক গ্রেফতার রাজশাহীতে প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু রিভার সিটি নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত রুয়েটকে স্মার্ট বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে রুপান্তর করতে হলে সকল ক্ষেত্রে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা জরুরী চিপস্ খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে ৬ বছরের নাবালিকাকে ধর্ষণ চেষ্টা: আসামি নাইম গ্রেফতার এইচএসসি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে আরএমপি’র নোটিশ জারি তানোরে ক্লুলেস হত্যা মামলার পলাতক আসামি ইকবাল গ্রেফতার কৃষিতে বির্পযয়ের আশঙ্কা তানোরে চোরাপথে আশা মানহীন সারে বাজার সয়লাব বাঘায় বাবুল হত্যা মামলায় চেয়ারম্যানসহ ৭ জনকে রিমান্ড শেষে কারাগারে প্রেরণ সিংড়ায় ক্যান্সারে আক্রান্ত ২২ ব্যক্তির মাঝে চেক বিতরণ
রাজশাহীতে ৪০০ টাকায় মেলে ‘ফিটনেস সনদ!

রাজশাহীতে ৪০০ টাকায় মেলে ‘ফিটনেস সনদ!

রাজশাহীতে ৪০০ টাকায় মেলে ‘ফিটনেস সনদ!
রাজশাহীতে ৪০০ টাকায় মেলে ‘ফিটনেস সনদ!

অনলাইন ডেস্ক: রাজশাহীতে বিআরটিএ কার্যালয়ের সামনে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে ফিটনেস সনদ (স্বাস্থ্য পরীক্ষার সনদ)। কেনা এ সনদ দিয়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়া যাচ্ছে। অভিযোগ উঠেছে, বিআরটিএর কর্মচারীরা এ জাল সনদ কেনার পরামর্শ দিচ্ছেন। এ সনদে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের একজন চিকিৎসকের স্বাক্ষর রয়েছে। তবে হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সেখানে ওই নামে কোনো চিকিৎসক দায়িত্ব পালন করেন না।

নগরের নওদাপাড়া আমচত্বর এলাকায় বিআরটিএর রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয় অবস্থিত। এই কার্যালয়ের সামনে দিয়ে রাজশাহী নগর বাইপাস সড়ক চলে গেছে। সড়কের উত্তর পাশেই এক সারি কম্পিউটারের দোকান রয়েছে। এই দোকান থেকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার সনদ কিনতে পাওয়া যায়।

সম্প্রতি সেসব দোকানে গিয়ে দেখা গেছে, প্রকাশ্যেই স্বাস্থ্য পরীক্ষার সনদ নিয়ে দোকানের লোকজন কথা বলছেন। একজন গ্রাহক বলেন, তিনি নগরের লক্ষ্মীপুর এলাকার একজন চিকিৎসকের কাছে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করিয়ে এর সনদ বিআরটিএ কার্যালয়ে জমা দিতে গিয়েছিলেন। বিআরটিএর একজন কর্মচারী তাঁকে ওই সময় পরামর্শ দেন, এভাবে জমা দিলে হবে না। তার চেয়ে দোকানে গিয়ে টাকা দিলে ওরা তৈরি করে দেবে। তাহলে আর কোনো ঝামেলা থাকবে না। তিনি ওই কর্মচারীর কথামতো দোকানে এসে একটি সনদ কিনে জমা দেন।

বিজ্ঞাপন
বিআরটিএর একজন কর্মচারী তাঁকে পরামর্শ দেন,দোকানে গিয়ে টাকা দিলে ওরা তৈরি করে দেবে। তাহলে আর কোনো ঝামেলা থাকবে না।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গ্রাহক
দোকানের লোকজন ও গ্রাহকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, একটি দোকানের ভেতরে একজন দাঁড়িয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষার আবেদন ফরম পূরণ করছেন। তিনি বলেন, ৪০০ টাকা দিলে স্বাস্থ্য পরীক্ষার আবেদন ফরম পূরণসহ সব করে দেওয়া হয়। গ্রাহককে কোনো ঝামেলা পোহাতে হবে না। আর ১৩০ টাকা দিলে গ্রাহকের নিজের ফরম পূরণ করে নিয়ে আসতে হয়। সেখানে শুধু চিকিৎসকের স্বাক্ষর ও সিল দিয়ে দেওয়া হয়।

দোকানে বিক্রি হওয়া সনদে যে চিকিৎসকের স্বাক্ষর রয়েছে, তাঁর নাম মেহেদী হাসান রাসেল। পদবির জায়গায় লেখা রয়েছে এমবিবিএস, সিসিডি (বারডেম), পিজিটি (এমইডি), মেডিকেল স্পেশালিস্ট, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। ওই চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ মো. নওশাদ আলীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, রাজশাহী মেডিকেল কলেজে ও হাসপাতালে এই নামে কোনো চিকিৎসক নেই। আর যেভাবে মেডিকেল স্পেশালিস্টের ডিগ্রি লেখা হয়েছে, বাস্তবে এভাবে লেখা হয় না।

এ ব্যাপারে বিআরটিএর রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আবদুল খালেক মুঠোফোনে বলেন, দুই বান্ডিল আবেদনপত্র যাচাই করে এই চিকিৎসকের নামে সই করা দুটি আবেদনপত্র তিনি পেয়েছেন। এগুলোতে এখনো তাঁর সই হয়নি। এই আবেদনগুলো গত ১৫ ডিসেম্বরের পর জমা হয়েছে।

রাজশাহীর সিভিল সার্জন আবু সাঈদ মোহাম্মদ ফারুক বলেন, যিনি গাড়ি চালাবেন, তাঁর সুস্থ থাকা অত্যন্ত জরুরি। এ জন্যই ড্রাইভিং লাইসেন্স দেওয়ার আগে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে সনদ দেওয়া বাধ্যতামূলক। সনদ বিক্রি এটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। কেউ এ কাজ করলে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি। একজন মেডিকেল অফিসার অথবা তাঁর কার্যালয়ে এলে ৫০ টাকা চালান জমা দিলে এ সনদ করে দেওয়া হয়। কাউকে কোনো ঝামেলা পোহাতে হয় না।

মতিহার বার্তা / ইএবি

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply