শিরোনাম :
গোদাগাড়ীতে ১০লাখ টাকার হেরোইন-সহ ৩জন মাদক কারবারী গ্রেফতার নগরীর তালাইমারীতে গাঁজা কারকারী মল্লিক গ্রেফতার রাজশাহীতে প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু রিভার সিটি নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত রুয়েটকে স্মার্ট বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে রুপান্তর করতে হলে সকল ক্ষেত্রে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা জরুরী চিপস্ খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে ৬ বছরের নাবালিকাকে ধর্ষণ চেষ্টা: আসামি নাইম গ্রেফতার এইচএসসি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে আরএমপি’র নোটিশ জারি তানোরে ক্লুলেস হত্যা মামলার পলাতক আসামি ইকবাল গ্রেফতার কৃষিতে বির্পযয়ের আশঙ্কা তানোরে চোরাপথে আশা মানহীন সারে বাজার সয়লাব বাঘায় বাবুল হত্যা মামলায় চেয়ারম্যানসহ ৭ জনকে রিমান্ড শেষে কারাগারে প্রেরণ সিংড়ায় ক্যান্সারে আক্রান্ত ২২ ব্যক্তির মাঝে চেক বিতরণ
মূল ধারার সুন্দরীদের সঙ্গে টক্কর দিয়ে বিশ্বমঞ্চে দীপিকা

মূল ধারার সুন্দরীদের সঙ্গে টক্কর দিয়ে বিশ্বমঞ্চে দীপিকা

মূল ধারার সুন্দরীদের সঙ্গে টক্কর দিয়ে বিশ্বমঞ্চে দীপিকা
মূল ধারার সুন্দরীদের সঙ্গে টক্কর দিয়ে বিশ্বমঞ্চে দীপিকা

তামান্না হাবিব নিশু : তন্বী বলতে যা বোঝায়, তা তিনি নন। কোমরের বেড়, জিন্সের ফিটেই স্পষ্ট ‘৩৬-২৮-৩৬’-এর বাঁধাগতে তিনি ধরা পড়েন না। থুতনি-গালে কাঠকাঠ ধারালো ব্যাপার একেবারেই নেই। বরং একটু বেশিই গোলগাল। হাসলে গাল দুটো আরও কিছুটা ফুলে ওঠে।

শরীরের মাপজোকে সর্বত্রই অতিরিক্ত কয়েক ইঞ্চির ‘যুক্তাক্ষর’ স্পষ্ট । কারণ তিনি ‘প্লাস সাইজ়’। তবু সে সবের পরোয়া না করেই তিনি বেরিয়ে পড়েছিলেন সৌন্দর্যের ব্রহ্মাণ্ড জয়ের লক্ষ্যে। নাম দিয়েছিলেন বিশ্বমানের সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায়।

যু্ক্তি ছিল সোজাসাপটা— সৌন্দর্যের আবার কোনও বাঁধাধরা সংজ্ঞা হয় নাকি? কেউ কি বলে দিয়েছে, সুন্দরীদের রোগা, হিলহিলে, দুধে-আলতা রঙের হতেই হবে! তারা শ্যামলা হতে পারবেন না বা পৃথুলা হতে পারবেন না? তাঁদের চেহারা বালুঘড়ির মতো হতেই হবে?

অবশ্য বালুঘড়িকে যদি আদর্শ মানতে হয়, তবে তেমন ঢেউখেলানো চেহারা তাঁরও আছে। বস্তুত শরীরের ঢেউকে ভালইবাসেন তিনি। প্লাস সাইজ় তাই তাঁর আত্মবিশ্বাস ‘মাইনাস’ করতে পারেনি।

মূলত এই সব ভাবনায় ভর করেই ২২ বছরের দীপিকা জেন গ্যারেট নাম লিখিয়েছিলেন বিশ্বমানের শীর্ষ স্থানীয় এক সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায়। আর কী অদ্ভুত, সুযোগও পেয়ে গিয়েছিলেন।

এককালে সুস্মিতা সেন, লারা দত্তদের মতো বলিউড অভিনেত্রীরা যে মুকুট জয় করেছিলেন, সেই ‘ব্রহ্মাণ্ডসুন্দরী’র খেতাব জয়ের মঞ্চে ডাক পেয়েছিলেন দীপিকাও।

রবিবার, ১৯ নভেম্বর সেই প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বের বিচার ছিল মধ্য আমেরিকার এল সালভাদরে। নাহ, দীপিকার মাথায় জয়ের মুকুট ওঠেনি। তবে খেতাব না জুটলেও প্রাপ্তির ঝুলি ভরে নিয়েছেন গোলগাল চেহারার এই ২২ বছরের মেয়েটি।

সেরার মুকুট জিতেছেন যিনি, তাঁর মতোই পরিচিতি জুটেছে দীপিকারও। একাধিক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে খেতাবজয়ী সুন্দরীর পাশাপাশি আলাদা করে বলা হয়েছে দীপিকার নাম। লেখা হয়েছে আলাদা প্রতিবেদন। প্রত্যেকেরই বক্তব্য এক— সৌন্দর্যের বিশ্বমঞ্চে ইতিহাস তৈরি করেছেন দীপিকা।

তাঁর দৌলতেই প্রথম ছক ভাঙল ওই সৌন্দর্য প্রতিযোগিতা। এই প্রথম হিলহিলে কোমরের তন্বীদের পাশাপাশি কোনও প্লাস সাইজের তরুণীও সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার মঞ্চ মাতালেন।

বস্তুত দীপিকা যে সত্যিই মঞ্চ মাতিয়েছেন, তা জানিয়েছে ওই বিদেশি সংবাদমাধ্যমগুলিই। তারা বলেছে, মঞ্চে দীপিকাকে দেখার পর দর্শকাসন থেকেই সাদর অভ্যর্থনা জানানো হয় তাঁকে। দীপিকার হাসি, তাঁর সাঁতার পোশাকে মঞ্চে অবতীর্ণ হওয়া, তাঁর আত্মবিশ্বাসী জবাব— সবেতেই করতালি শোনা গিয়েছে দর্শকাসন থেকে।

সংবাদমাধ্যমগুলিই লিখেছে, মনে হচ্ছিল আলোর আড়ালে থাকা বহু মহিলার প্রতিনিধি হয়ে মঞ্চে অবতীর্ণ হয়েছেন দীপিকা। অবশ্য রবিবার প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ী ঘোষণা হওয়ার পর তিনি নিজেও সে কথাই জানিয়েছেন।

দীপিকা জানিয়েছেন, এখানে এসে পৌঁছনোটাই তাঁর কাছে একটা বড় বিষয় ছিল। কারণ তাঁর আগে আর কোনও পৃথুলা চেহারার মহিলাকে মূল ধারার কোনও সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার মঞ্চে দেখা যায়নি। সেই অর্থে তিনি এই নিয়ে ট্যাবু ভাঙলেন। তাঁর পর আগামী দিনে চাইলে আরও প্লাস সাইজ় মহিলা সাহস করে সৌন্দর্যের দুনিয়া জয়ের স্বপ্ন দেখতে পারবেন।

শরীরের গড়ন নিয়ে অনেকেই হতাশায় ভোগেন। অনেকে মানসিক অবসাদে ডুবে যান। দীপিকার বিশ্বাস, তাঁর এই সামান্য চেষ্টা এই মেয়েদেরও আত্মবিশ্বাস জোগাবে।

দীপিকা জানেন, কারণ তিনি নিজেও এক সময় এই অবসাদের শিকার হয়েছিলেন। কিন্তু তিনি মনের জোরে সেই বাধা পেরিয়ে এসেছেন। এখন তিনি ফিটনেসে কোন তন্বীর থেকে কম যান না। আর মনে করেন সৌন্দর্যকে ফিতেয় বেঁধে রাখা যায় না।

কিন্তু কে এই দীপিকা? তিনি কি ভারতীয় কন্যা? বিশ্বমঞ্চে সৌন্দর্যের ছক ভাঙার বার্তা দেওয়া এই ২২ বছরের তরুণীর জন্ম আমেরিকার ওয়াশিংটনে। তবে জন্ম আমেরিকায় হলেও তিনি জন্মসূত্রে আমেরিকান নন।

দীপিকা নেপালের কন্যা। তাঁর পরিবার নেপালের কাঠমান্ডুর বাসিন্দা। যদিও দীপিকার কৈশোর কেটেছে আমেরিকাতেই। পরে তিনি নেপালে ফেরেন। নেপালের সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় সেরা সুন্দরীর শিরোপাও জেতেন তিনি।

২১ বছর বয়সে ‘মিস্ নেপাল’ খেতাব জয়ের বছর কয়েক আগেও দীপিকা ভাবেননি কোনও দিন সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করবেন। পড়াশোনা নিয়েই মেতে থাকতেন। নার্সিংয়ের ছাত্রী ছিলেন দীপিকা। হঠাৎই মডেলিংয়ে আসেন।

উচ্চতা গড়পড়তাদের থেকে অনেকটাই বেশি। ৫ ফুট ৭ ইঞ্চি। পাল্লা দিয়ে ওজনও ৮০ কেজির বেশি। তবে তাঁর লাবণ্য, আকর্ষণীয় হাসি, আত্মবিশ্বাস এবং স্টাইল মুগ্ধ করে সৌন্দর্য দুনিয়ার তাবড় ব্যক্তিত্বদের।

তথাকথিত তন্বীদের পিছনে ফেলেই নেপালের মূল ধারার সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার খেতাব ছিনিয়ে নেন দীপিকা। তার পরেই সোজা বিশ্ব মঞ্চে।

সেই বিশ্ব সৌন্দর্য প্রতিযোগিতার মঞ্চে নিজের অংশগ্রহণ নিয়ে কী বলেছেন দীপিকা? নেপালের এই তরুণী বলেছেন, ‘‘আমার মতো গোলগাল চেহারার মেয়ে, যে সৌন্দর্যের তথাকথিত সংজ্ঞায় পড়ি না, এই মঞ্চে এসেছি বিশ্বের সমস্ত আকারের মহিলাদের প্রতিনিধি হয়ে। কারণ আমি বিশ্বাস করি, সুন্দর হওয়ার কোনও সংজ্ঞা হতে পারে না।’’

দীপিকা মনে করেন, ‘‘প্রত্যেক মহিলাই নিজের মতো করে সুন্দর। শুধু সেই সৌন্দর্যকে চিনতে হবে। ভালবাসতে হবে নিজেকে।’’ বছর কয়েক আগে তিনি নিজেও নিজের চেহারা নিয়ে আত্মবিশ্বাসহীনতায় ভুগতেন জানিয়ে দীপিকা বলেছেন, ‘‘এখন আমি নিজেকে ভালবাসি। আর এটাই আমার কাছে সবচেয়ে বড় সাফল্য।’’

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply