শিরোনাম :
রাজশাহীতে বালু মজুদ করতে ১০ একর জমির কাঁচা ধান সাবাড় বিশ্বের দীর্ঘতম গাড়িতে রয়েছে সুইমিং পুল, হেলিপ্যাডও ছুটির দিনে হেঁশেলে খুব বেশি সময় কাটাতে চান না? রবিবারে পেটপুজো হোক তেহারি দিয়েই দাম দিয়ে ছেঁড়া, রংচটা জিন্‌স কিনবেন কেন? উপায় জানা থাকলে নিজেই বানিয়ে ফেলতে পারেন উন্মুক্ত বক্ষখাঁজ, খোলামেলা পিঠ, ভূমির মতো ব্লাউজ় পরেই ভিড়ের মাঝে নজরে আসতে পারেন আপনিও স্পর্শকাতর ত্বকের জন্য বাড়িতেই স্ক্রাব তৈরি করে ফেলতে পারেন, কিন্তু কতটা চালের গুঁড়ো দেবেন? গরমে শরীর তো ঠান্ডা করবেই সঙ্গে ত্বকেরও যত্ন নেবে বেলের পানা, কী ভাবে বানাবেন? গাজ়া এবং ইরানে হামলা চালাতে ইজ়রায়েলকে ফের ৮ হাজার কোটি টাকার অস্ত্রসাহায্য আমেরিকার! ইজ়রায়েলকে জবাব দিতে সর্বোচ্চ নেতার ফতোয়ার কথাও ভুলতে চায় ইরান, এ বার কি পরমাণু যুদ্ধ? দিনাজপুরে ড্রাম ট্রাকসহ ১০০ কেজি গাঁজা জব্দ, গ্রেপ্তার ৩
হিন্দু রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় দুর্গাপূজা

হিন্দু রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় দুর্গাপূজা

হিন্দু রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় দুর্গাপূজা

মতিহার বার্তা ডেস্ক : ভিন দেশে দ্বিতীয়বারের মতো ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপন করছে মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে পালিয়ে আসা বাংলাদেশে আশ্রিত হিন্দু রোহিঙ্গারা।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট পরবর্তী মিয়ানমারের সামরিক জান্তার নির্যাতন-নিপীড়ন ও হত্যাযজ্ঞ থেকে প্রাণে বাঁচতে কক্সবাজারের উখিয়ায় আশ্রয় নেয় তারা।

১০১ পরিবারের প্রায় ৪১৮ জন হিন্দু রোহিঙ্গা উখিয়ার রাজাপালং ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের কুতুপালংস্থ সরকারি বন বিভাগের জায়গার ওপর তাদের আশ্রয় শিবির।

সেখানেই হয়েছে পূজা মণ্ডপসজ্জার কাজ। শুক্রবার সন্ধ্যায় ষষ্ঠীর মধ্যদিয়ে শুরু হয় শারদীয়া দুর্গাপূজা।

শুক্রবার সন্ধ্যায় কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ের সন্নিকটে আরকান সড়কের পশ্চিম পার্শ্বে এসব বাস্তুচ্যুত হিন্দু রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গেলে তাদের জীবন যাপন ও পূজামণ্ডপ দেখা যায়।

এ সময় হিন্দু রোহিঙ্গা ক্যাম্প কমিটির নেতা ইন্দ্র রুদ্র জানান, প্রশাসনের উদ্যোগে এবার হিন্দু শরণার্থী শিবিরে দুর্গাপূজা মণ্ডপ হচ্ছে। এ নিয়ে সবার মাঝে খুশির আমেজ বিরাজ করছে।

আরেক হিন্দু রোহিঙ্গা নেতা শিশু শীল বলেন, তারা চাহিদা অনুযায়ী রেশন সামগ্রী পাশাপাশি যাবতীয় সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে। এবারের পূজা উদযাপনে প্রয়োজনীয় নতুন কাপড়-চোপড় কিনতে কোনো সমস্যা হয়নি বলে সে জানায়।

নিরাপত্তার বিষয়ে জানতে চাইলে সুনীল পাল ও রতন রুদ্র জানান, প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২৪ ঘণ্টা প্রয়োজনীয় সংখ্যক নিরাপত্তারক্ষী নিয়োজিত রয়েছে। তবে পূজা উপলক্ষে বাড়তি নিরাপত্তার প্রয়োজন আছে বিধায় অতিরিক্ত সংখ্যক আইন-শৃংখলা বাহিনী শুক্রবার থেকে টহল দিচ্ছে।

শুক্রবার থেকে প্রশাসনের তদারকিতে পূজামণ্ডপের কার্যক্রম শুরু হয়েছে জানিয়েছেন।

প্রশাসনের সহযোগিতায় মঙ্গলবার বিজয়ী দশমীতে হিন্দু শরণার্থীরা প্রতীমা বিসর্জন দিতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

হিন্দু রোহিঙ্গা নারী বিশু বালা জানান, আমরা কোনো রকম এখানে আশ্রয় নিয়েছি। নিজ দেশের বাপ-দাদার বসতভিটায় ফিরে যেতে চাই। স্বদেশে পূজা উদযাপন করতে পারলে ভালো লাগত। তবে এবার উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে শারদীয়া দুর্গাপূজা উদযাপন করা হবে। এ নিয়ে আমরা সবাই খুশি।

মতিহার বার্তা ডট কম  ০৮ অক্টোবর  ২০১৯

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply