শিরোনাম :
আইএস-কন্যাকে যুক্তরাজ্যে ফেরাতে চান না বাংলাদেশী বাবা

আইএস-কন্যাকে যুক্তরাজ্যে ফেরাতে চান না বাংলাদেশী বাবা

উগ্রবাদী জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট এ যোগদানকারী ব্রিটিশ নাগরিক শামীমা বেগম ও তার বাবা আহমেদ আলী ছবি: ডেইলি মেইল, রয়টার্স

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : উগ্রবাদী জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট এ যোগদানকারী আলোচিত ব্রিটিশ নাগরিক শামীমা বেগমের বাবা আহমেদ আলী বলেছেন, তার মেয়ের ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিলের বিষয়ে তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদকে সমর্থন করেন।

প্রথমবারের মতো ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে আলী বলেন, ‘আমি জানি ব্রিটিশ সরকার তাকে ফিরিয়ে আন্তে চায় না। আমার তাতে কোনো সমস্যা নেই। আমি জানি সে সিরিয়াতে আটকে পড়েছে। কিন্তু সে তার কর্মের কারণেই সেখানে এখন আটকে রয়েছে।’

আলী আরও বলেন, ‘আমি সরকারের পক্ষে। আমি জানিনা এটা ভুল না ঠিক। তবে এখানকার আইন যদি তার নাগরিকত্ব কেড়ে নেয়াকে সঠিক বলে মনে করে তবে আমিও তাতে রাজি।’

ডেইলি মেইল গতকাল সুনামগঞ্জে আহমেদ আলীর বাড়িতে তার সাক্ষাৎকার নেয়।

আলী ১৯৭৫ সালে যুক্তরাজ্যে যান এবং সাত বছর পর সেখানে আসমা বেগমকে বিয়ে করেন। পূর্ব লন্ডনের বেথনাল গ্রিন এলাকায় বসবাস করা এই দম্পতির চার কন্যা সন্তান রয়েছে। ৯০ এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে আলী বাংলাদেশে আরেকটি বিয়ে করেন এবং নিয়মিত বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যে আসা-যাওয়া করেন।

শামীমা ২০১৫ সালে সিরিয়ায় পালিয়ে যাবার দুমাস আগে যুক্তরাজ্য সফরে এসে মেয়েকে শেষবারের মতো দেখেন আলী। গত সপ্তাহে সিরিয়ার শরণার্থী ক্যাম্পে বিভিন্ন মিডিয়াকে দেয়া সাক্ষাত্কারে শামীমার মধ্যে অনুশোচনার ঘাটতি দেখে আলী প্রচন্ড বিস্মিত।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যদি সে অন্তত তার ভুলের জন্য ক্ষমা চাইতো তাহলে আমি তার জন্য দুঃখবোধ করতাম। জনগণ তার জন্য দুঃখবোধ করতো। কিন্তু সে তার ভুল স্বীকার করেনি।

উল্লেখ্য, গত রবিবার শামীমা শরণার্থী ক্যাম্পে একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দেন। সন্তানের সুন্দর ভবিষ্যতের আশায় তিনি বিভিন্ন মিডিয়ার কাছে যুক্তরাজ্যে ফিরে আসার ইচ্ছার কথা জানিয়ে আলোচিত হন। পরবর্তীতে ব্রিটিশ সরকার তার নাগরিকত্ব বাতিল করে।সূত্র: ঢাকা ট্রিবিউন।

মতিহার বার্তা ডট কম ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *