শিরোনাম :
পাকিস্তান এয়ারফোর্সকে তৈরি হওয়ার নির্দেশ

পাকিস্তান এয়ারফোর্সকে তৈরি হওয়ার নির্দেশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বদলার জবাব বদলা৷ পাকিস্তান যে ভাষা বোঝে সেই ভাষাতেই জবাব দিল ভারত৷ ঘরে ঢুকে পাক মদতপুষ্ট জইশের জঙ্গি ঘাঁটিগুলি গুঁড়িয়ে দিয়ে এল ভারতীয় বায়ুসেনা৷ জঙ্গিদের বিরুদ্ধে এটাই এযাবৎকালের সবথেকে বড় অপারেশন ভারতের৷ বলা ভালো জইশের নাকের ডগায় আঘাত হেনেছে ভারতীয় সেনা৷ বিপুল ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এই জঙ্গি সংগঠনের৷

সূত্রের খবর, যেসব ঘাঁটি উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে সেখানেই থাকত জইশের তাবড় সব জঙ্গিনেতারা। মাসুদ আজহারের ডানহাত, বাম হাতদেরকেই টার্গেট করেছিল বায়ুসেনা। ভারতীয় বায়ুসেনার অতর্কিত এই হামলায় রীতিমত কোমর ভেঙে যায় পাকিস্তানের। আকাশ থেকে ছোঁড়া একের পর এক বোমার আঘাতে দাঁড়াতেই পারেনি জঙ্গিরা। নিখুঁত লক্ষ্যভেদ করে মিরাজ ২০০০ বিমান থেকে লেজার গাইডেড বোমা। সেই বোমার আঘাতেই মাসুদ আজাহারের ২ ভাই ও শালার মৃত্যু হয়েছে বলে খবর।

হামলায় মৃত্যু হয়েছে মাসুদ আজাহারের ২ ভাইও। মৃত্যু হয়েছে মাসুদ আজাহারের ভাই তলহা সইদ, ইব্রাহিম আজহারের, মৃত্যু হয়েছে কাশ্মীরে জইশের প্রধান আজহার খান ও উমর নামে এক জঙ্গি। এদের মধ্যে ইব্রাহিম আজাহার কান্দাহার বিমান অপহরণে সরাসরি যুক্ত ছিলেন বলে জানা গিয়েছে।

ভারতীয় বায়ুসেনার এত বড় অপারেশনে রীতিমত চাপে পাকিস্তান। এই অবস্থায় ইমরানের সরকারের হুমকি, ভারতকে নাকি জবাব দেওয়া হবে। তাও আবার কড়া ভাষায়। সে দেশের প্রকাশিত খবর মোতাবেক, প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের এহেন হুঁশিয়ারির পরেই পাকিস্তান এয়ারফোর্সকে তৈরি হতে বলা হয়েছে। ভারতকে জবাব দেওয়ার জন্যেই এহেন হুঁশিয়ারি দেওয়া পাকসেনার তরফে।

প্রসঙ্গত, গত কয়েকদিন আগেই পাকিস্তান এয়ারফোর্সকে সবরকম পরিস্থিতির জন্যে তৈরি থাকতে নির্দেশ দিয়ে ছিলেন সে দেশের এয়ারফোর্স চিফ। কিন্তু তার আগেই পাকিস্তানে ঢুকে জঙ্গি মেরে আসল ভারতীয় বায়ুসেনা।

আজ ভারতীয় বায়ুসেনার এই প্রত্যাঘাতের পরেই হামলার পর জরুরি ভিত্তিতে বৈঠকে বসেন ইমরান। বৈঠকের পর পাকিস্তানের তরফ থেকে বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘ভারত অকারণে আগ্রাসন দেখিয়েছে। পাকিস্তান নিজের ঠিক সময়ে ও ঠিক জায়গায় এর জবাব দেবে। তাই যে কোনও অবস্থার জন্য পাক সেনা ও পাকিস্তানের সাধারণ মানুষকে তৈরি থাকতে বলেছেন তিনি।

মঙ্গলবার দুপুরেই ইমরান খানের দফতরে বসে সেই বৈঠক। সেখানে উপস্থিত ছিলেন পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি, সেনা প্রধান কামার জাভেদ বাজওয়া, পাক সেনার মুখপাত্র আসিফ গফুর সহ একাধিক শীর্ষকর্তা। এই বৈঠকে প্রত্যেকেই বালাকোটের ক্ষয়ক্ষতির কথা অস্বীকার করেছে। তাদের দাবি, ভারত নিজেদের স্বার্থে মিথ্যা দাবি করছে। ইমরান খানের দাবি, ভারত নির্বাচনের স্বার্থে এসব প্রচার করছে। ভারতের এই অভিযান যে আসলে হয়নি, সেটা বোঝাতে পাকিস্তান অন্যান্য দেশের সঙ্গে কথা বলবে বলেও জানিয়েছে।

মতিহার বার্তা ডট কম –২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *