শিরোনাম :
সাধারণ মানুষ সমাবেশ প্রত্যাখান করেছে, রাসিক মেয়র লিটন রাজশাহী নগরীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে বিএনপির গণসমাবেশ শুরু কাজ হল না বিষেও! আসামির মৃত্যু নিশ্চিত করতে ভয়ঙ্কর পন্থা নিলেন জেল কর্তৃপক্ষ সঙ্গ পেতে মহিলাকে নিয়ে কলকাতার হোটেলে, প্রতিশ্রুতি মতো টাকা না দেওয়ায় ধৃত ৩ বাংলাদেশি প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে এখন লজ্জায় মুখ দেখাতে পারছেন না স্পেনের কোচ, কেন? বদলের ব্রাজিলে নজিরের মুখে দাঁড়িয়ে আলভেস, পেলেকে শুভেচ্ছা জানিয়ে নামছে সেলেকাওরা বিশ্বকাপে নেমারের খেলার সম্ভাবনা নিয়ে এ বার মুখ খুললেন তাঁর বাবা রাজশাহীতে আনোয়ার হোসেন উজ্জলের নেতৃত্বে হাজার হাজার মানুষের মিছিল অনুষ্ঠিত শীত উপেক্ষা করে খোলা মাঠে রাত কাটালো বিএনপির নেতাকর্মীরা রাজশাহীতে বিএনপির সমাবেশে যেতে পথে পথে বাধা
রাজশাহী বিমানবন্দরে পুলিশের ডিসিকে তল্লাশি !

রাজশাহী বিমানবন্দরে পুলিশের ডিসিকে তল্লাশি !

মতিহার বার্তা ডেস্ক :বিমানবন্দরের নিরাপত্তা চৌকি পার হয়ে বিমানে উঠে গিয়েছিলেন রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) একজন উপ-কমিশনার (ডিসি)। তবে আবু আহাম্মদ আল মামুন নামের এই পুলিশ কর্মকর্তাকে বিমান থেকে নামিয়ে তল্লাশি করা হয়েছে। যদিও তাকে তল্লাশি করা নিয়ে এর আগেই রাজশাহীর হযরত শাহমখদুম (র.) বিমানবন্দরে কথা কাটাকাটির ঘটনা ঘটে।

ডিসি আবু আহাম্মদ আল মামুনকে তল্লাশি করতে চাওয়ায় পুলিশের নগর বিশেষ শাখার (সিটিএসবি) এক সদস্য ও সিভিল এভিয়েশনের একজন নিরাপত্তাকর্মীর মধ্যে কথা কাটাকাটি হয় । বুধবার বিকাল ৪টার দিকে বিমানবন্দরেই এ ঘটনা ঘটে। তখন বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক সেতাফুর রহমানও উপস্থিত ছিলেন।

এ ঘটনার পর পুলিশ ও সিভিল এভিয়েশনের নিরাপত্তাকর্মীদের মধ্যে মানসিক দূরত্ব তৈরি হলে বৃহস্পতিবার সকালে আরএমপির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বিমানবন্দরে যান। তারা দুই পক্ষকে নিয়ে মীমাংসায় বসেন। সেখানে সিটিএসবির এক কনস্টেবল ও সিভিল এভিয়েশনের ওই নিরাপত্তাকর্মীর মধ্যে মীমাংসা করা হয়। তবে ঘটনাটি নিয়ে সিভিল এভিয়েশনের নিরাপত্তাকর্মীদের মাঝে এখনও অসন্তোষ রয়েছে।
তারা জানান, কোন যাত্রীকে বিমান পর্যন্ত যেতে হলে দুইবার দেহ তল্লাশি এবং লাগেজ স্ক্যানিংয়ের মুখোমুখি হতে হয়। বিমানবন্দরের ভেতরে প্রবেশের সময় একবার এবং ডিপার্চার লাউঞ্জ হয়ে টার্মিনালে পৌঁছানোর সময় আরেকবার এই তল্লাশি হয়। কিন্তু বিমানবন্দরে ডিবি পুলিশের ডিসি আবু আহাম্মদ আল মামুন প্রবেশ করেই ডিপার্চার লাউঞ্জ না হয়ে ভিআইপি লাউঞ্জের দিকে যেতে চান।

সিভিল এভিয়েশনের নিরাপত্তা কর্মীরা এ সময় তাকে তল্লাশি করতে চাইলে মামুন নিজের পরিচয় দিয়ে তল্লাশিতে বাধা দেন। এরপর তিনি তল্লাশি না করিয়েই ভিআইপি লাউঞ্জ হয়ে বিমানে গিয়ে ওঠেন।

এ সময় সিটিএসবির এক সদস্য সিভিল এভিয়েশনের ওই নিরাপত্তা কর্মীর কাছে জানতে চান কেন পুলিশ কর্মকর্তার তল্লাশি করতে চাওয়া হয়েছে। ওই নিরাপত্তা কর্মী বলেন, এখানে ডিসি হোক আর সচিব হোক- সবাইকেই তল্লাশি করতে হয়। এ নিয়ে নিরাপত্তাকর্মীর সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় এক কন্সটেবলের।

এ সময় বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক সেতাফুর রহমানও সেখানে উপস্থিত ছিলেন। তবে তিনি তখন নিশ্চুপ ছিলেন। সিভিল এভিয়েশন তখন ডিসি মামুনের তল্লাশি ছাড়া বিমান ছাড়বে না বলে ঘোষণা দেয়। বাধ্য হয়ে ডিসি মামুন বিমান থেকে নেমে আসেন। এ সময় রানওয়ের পাশেই তাকে তল্লাশি করা হয়।

এ বিষয়ে কথা বলতে ডিসি আবু আহাম্মদ আল মামুনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে ব্যস্ততার কারণ দেখিয়ে তিনি কথা বলতে রাজি হননি। তবে সেসময় উপস্থিত থাকা সিটিএসবির ওই কনস্টেবল বলেছেন, তিনি একটি সভায় আছেন। তাই কথা বলতে পারবেন না। তবে বিমানবন্দরে কিছু ঘটেনি বলে তিনি দাবি করেন। আর ঘটনাটি নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাননি বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক সেতাফুর রহমান।

তবে আরএমপির মুখপাত্র সিনিয়র সহকারী কমিশনার ইফতেখায়ের আলম বলেন, ঘটনাটি তারা জানেন। ভুল বোঝাবোঝির কারণে এমন হয়েছিল। পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ডিপার্চার লাউঞ্জে দ্বিতীয়বার তল্লাশি করা হয় এটা ডিসি মামুন স্যার জানতেন না। তিনি খুবই শেষ সময়ে বিমানবন্দরে গিয়েছিলেন।

ফ্লাইংয়ের দুই-চার মিনিট আগে। তাই তিনি তল্লাশি না করিয়েই যেতে চেয়েছিলেন। তবে বিমান থেকে তাকে নামিয়ে তল্লাশি করা হয়েছে কি না তা আমার জানা নেই।

ইফতেখায়ের আলম জানান, ঘটনাটি জানার পর সকালে তিনি নিজেই বিমানবন্দরে গিয়েছিলেন। তার সঙ্গে আরএমপির শাহমখদুম জোনের ডিসি সুজায়েত ইসলামও ছিলেন। তারা দুই পক্ষকে নিয়ে বসেছিলেন। সেখানে কনস্টেবল ও ওই নিরাপত্তা কর্মীর মাঝে মীমাংসা করা হয়। এরপর তার সঙ্গে সিভিল এভিয়েশনের কর্মীদের কোলাকোলি করানো হয়েছে। সুত্র: সিল্কসিটি ফাইল ফটো

মতিহার বার্তা ডট কম ০৪ এপ্রিল ২০১৯

 

 

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *