শিরোনাম :
প্রেমিকার বাড়ির সামনে বিষপানে প্রেমিকের মৃত্যু; বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর তথ্য ‘শাড়ি ক্যানসার’ কেন হয়? তার উপসর্গই বা কী? জানালেন চিকিৎসক ডায়াবেটিকেরাও ভাত খেতে পারেন, তবে মানতে হবে কিছু নিয়ম মল্লিকার সঙ্গে চুমু বিতর্ক, মুখ দেখাদেখি বন্ধ কুড়ি বছর, সাক্ষাৎ পেয়ে কী করলেন ইমরান? ক্যাটরিনার জন্যই সলমনের সঙ্গে সম্পর্কে দূরত্ব, ইদে স্বামীকে নিয়ে ভাইজানের বাড়িতে আলিয়া! রাজশাহী মহানগরীতে পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার ২৬ ১৬ মাসের মেয়েকে বাড়িতে একা রেখে ছুটি কাটাতে যান মা, না খেয়ে, জল না পেয়ে মৃত্যু! সাজা যাবজ্জীবন রাজশাহীতে ট্রাকে টোল আদায়ের নামে চাঁদাবাজি, আটক ২ পুঠিয়ায় পুলিশের উপর হামলার অভিযোগে গ্রেফতার ৩ ঈদের সাথে যুক্ত হওয়া নববর্ষের উচ্ছ্বাসে বিনোদন স্পট পরিপূর্ণ
জাতীয় পর্যায়ে কাজী নজরুল ইসলামের ১২৪তম জন্মজয়ন্তী

জাতীয় পর্যায়ে কাজী নজরুল ইসলামের ১২৪তম জন্মজয়ন্তী

জাতীয় পর্যায়ে কাজী নজরুল ইসলামের ১২৪তম জন্মজয়ন্তী
জাতীয় পর্যায়ে কাজী নজরুল ইসলামের ১২৪তম জন্মজয়ন্তী

অনলাইন ডেস্ক: সাম্য ও মানবতার কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৪তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে ময়মনসিংহের ত্রিশালে শুরু হচ্ছে জাতীয় পর্যায়ে তিনদিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার। এছাড়াও নজরুল একাডেমি মাঠে আয়োজন করা হয়েছে নজরুল মেলার। কবির জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে ত্রিশালে নির্মিত কবির স্মৃতিবিজড়িত স্মৃতিকেন্দ্রগুলোতে প্রাণচাঞ্চলতা ফেরানোর দাবি জানিয়েছেন নজরুল প্রেমিরা।

ঘুনে ধরেছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ব্যবহৃত খাটে। অচল গ্রামোফোন রেকর্ডটিও। এই দুইটি জিনিস ছাড়া নজরুল স্মৃতিকেন্দ্রগুলোতে সংরক্ষিত কিছু বই এবং দুর্ভল ছবি দর্শনার্থীদের মনকাড়তে পারেনি। তাই সারা বছরেই দর্শনার্থী শূণ্য থাকে এসব স্মৃতিকেন্দ্রগুলো। ২৫ মে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৪ তম জন্মবার্ষিকী ঘিরে স্মৃতিকেন্দ্রে প্রাণচাঞ্চলতা ফেরানোর দাবি স্থানীয়দের।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের স্মৃতি রক্ষার্থে ২০০৮ সালে ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার কাজির শিমলা দারাগোবাড়ি ও বিচুতিয়া বেপারিবাড়িতে নির্মাণ করা হয় নজরুল স্মৃতিকেন্দ্র। এই দুই স্মৃতিকেন্দ্রে সংরক্ষিত রয়েছে কবির ব্যবহৃত খাট ও গ্রামোফোন রেকর্ডটি। তবে সংরক্ষণের অভাবে ঘুনে ধরেছে খাটটিতে। অকেজো হয়ে পড়ে আছে গ্রামোফোন রেকর্ডটিও।

কাজী শাহাদৎ হোসেন বলেন, আমার দাদা কাজী রফিজউল্লাহ দারোগা ১৯১৪ সালে ভারতের আসানসোলের হোটেলের কর্মচারী কাজী নজরুল ইসলামকে ময়মনসিংহের ত্রিশালের কাজির শিমলায় নিয়ে আসেন। পরে দরিরামপুর স্কুলে সপ্তম শ্রেণিতে ভর্তি করান নজরুলকে। স্কুল কিছুটা দূরে হওয়ায় এখানে তিনমাস থাকার পর নজরুলকে বিচুতিয়া বেপারীবাড়িতে জায়গীর দেয়া হয়। নজরুল জায়গীর থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করে চলে যান কুমিল্লায়। তাঁর স্মৃতি রক্ষার্থে ২০০৮ সালে দুইটি স্মৃতিকেন্দ্র স্থাপন করা হলেও অবকাঠামোগত তেমন উন্নয়ণ না হওয়ায় খুব একটা দর্শনার্থী আসছে না। নজরুল যে খাটটিতে ঘুমাতেন সেই খাটটি সংরক্ষণের অভাবে বেহাল অবস্থায় রয়েছে। ঘুনে খাটের বিভিন্ন অংশ ক্ষয়ে যাচ্ছে। এটি সংরক্ষণ করা হলে অন্তত আরো পঞ্চাশ বছর খাটটি দৃশ্যমান থাকত।

দর্শনার্থী মুকুল আহম্মেদ বলেন, সাম্য ও মানবতার কবি কাজী নজরুল ইসলাম। নামটির সাথেই আমাদের আবেগ অনুভূতি জড়িত। কিন্তু তাঁর স্মৃতিকেন্দ্রে এসে হতাশ হয়ে ফিরছি। কাজির শিমলা স্মৃতিকেন্দ্রের নিচতলায় রাখা নজরুলের একমাত্র ব্যবহৃত খাটটি সংস্কারের অভাবে ঘুনে ধরেছে। বিচুতিয়া বেপারীবাড়িতে নজরুলের গ্রামফোন রেকর্ডটিও অচল। এছাড়া এখানে দেখার মতো আর কিছু নেই। রয়েছে নজরুলের কিছু ছবি ও বই। নতুন প্রজন্মকে নজরুল সম্পর্কে জানাতে হলে স্মৃতিকেন্দ্রগুলোকে আরো আধুনিকায়ন করতে হবে।

নজরুল স্মৃতিকেন্দ্রের সহকারী পরিচালক আক্তারুজ্জামান মন্ডল বলেন, কবি নজরুলের ব্যবহৃত খাট, গ্রামফোন রেকর্ড ছাড়াও দুইটি স্মৃতিকেন্দ্রে দুর্ভল কিছু ছবি এবং বই রয়েছে। সাধারণ মানুষ এখানে এসে নজরুল সম্পর্কে জানতে পারছে। খাটটি সংস্কারের পাশাপাশি স্মৃতিকেন্দ্রগুলোকে আধুনিকায়ন করতে প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে। এগুলো বাস্তবায়ন হলে নজরুলের স্মৃতি বিজড়িত স্থানগুলোতে মানুষের পদচারণা আরো বাড়বে।

জেলা প্রশাসক মো.মোস্তাফিজার রহমান বলেন, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্মবার্ষিকী ১৯৬৩ সাল থেকে স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে পালন করা হলেও ১৯৯০ সাল থেকে জাতীয় ভাবে পালনের সিদ্ধান্ত হয়। এবার ময়মনসিংহের ত্রিশালে ২৫ মে থেকে ২৭ মে পর্যন্ত তিন দিনব্যাপী জাতীয় ভাবে অনুষ্ঠিত হবে কবি নজরুলের জন্মজয়ন্তী। কবি নজরুলের স্মৃতি রক্ষার্থে নির্মিত দুইটি স্মৃতিকেন্দ্রসহ নজরুলের পদচারিত স্থানগুলো সংরক্ষণ করা প্রয়োজন। আর এই স্থানগুলো সংরক্ষিত থাকলে নতুন প্রজন্ম কবি নজরুলকে জানতে আরো বেশি আগ্রহী হবে। এসব স্মৃতি রক্ষার্থে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply