শিরোনাম :
রাজশাহীতে বালু মজুদ করতে ১০ একর জমির কাঁচা ধান সাবাড় বিশ্বের দীর্ঘতম গাড়িতে রয়েছে সুইমিং পুল, হেলিপ্যাডও ছুটির দিনে হেঁশেলে খুব বেশি সময় কাটাতে চান না? রবিবারে পেটপুজো হোক তেহারি দিয়েই দাম দিয়ে ছেঁড়া, রংচটা জিন্‌স কিনবেন কেন? উপায় জানা থাকলে নিজেই বানিয়ে ফেলতে পারেন উন্মুক্ত বক্ষখাঁজ, খোলামেলা পিঠ, ভূমির মতো ব্লাউজ় পরেই ভিড়ের মাঝে নজরে আসতে পারেন আপনিও স্পর্শকাতর ত্বকের জন্য বাড়িতেই স্ক্রাব তৈরি করে ফেলতে পারেন, কিন্তু কতটা চালের গুঁড়ো দেবেন? গরমে শরীর তো ঠান্ডা করবেই সঙ্গে ত্বকেরও যত্ন নেবে বেলের পানা, কী ভাবে বানাবেন? গাজ়া এবং ইরানে হামলা চালাতে ইজ়রায়েলকে ফের ৮ হাজার কোটি টাকার অস্ত্রসাহায্য আমেরিকার! ইজ়রায়েলকে জবাব দিতে সর্বোচ্চ নেতার ফতোয়ার কথাও ভুলতে চায় ইরান, এ বার কি পরমাণু যুদ্ধ? দিনাজপুরে ড্রাম ট্রাকসহ ১০০ কেজি গাঁজা জব্দ, গ্রেপ্তার ৩
পুরোদমে এগিয়ে যাচ্ছে স্বপ্নের মেট্রোরেল

পুরোদমে এগিয়ে যাচ্ছে স্বপ্নের মেট্রোরেল

মতিহার বার্তা ডেস্ক : আর স্বপ্ন নয়! দৃশ্যমান হচ্ছে স্বপ্নের মেট্রোরেল। উত্তরা দিয়াবাড়ীর পর মিরপুর, শেওড়াপাড়া ও আগারগাঁওয়ে দৃশ্যমান হলো ঢাকা ম্যাস র্যাপিড ট্রানজিট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট বা মেট্রোরেলের কাজ। পিলারের উপর দৃশ্যমান হয়েছে মেগা প্রকল্পের স্প্যান।

উত্তরার দিয়াবাড়ি থেকে মিরপুর, শেওড়াপাড়া ও আগারগাঁওয়ে পিলারের উপর দৃশ্যমান হয়েছে স্প্যান। ম্যাস র্যাপিড ট্রানজিট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টের (লাইন-৬) নির্মাণ কাজ কাজ হচ্ছে দুটি ধাপে। উত্তরা দিয়াবাড়ি থেকে আগারগাঁও রুটে চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত ৩৯ দশমিক ৯৩ শতাংশ প্রকল্পের কাজ নির্দিষ্ট সময়েই সম্পন্ন হবে বলে দাবি করছে মেট্রোরেল প্রকল্পের বাস্তবায়নকারী সংস্থা ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল)।
প্রকল্পের প্রধান প্রকৌশলী (পূর্ত) আবদুল বাকি মিয়া বলেন, প্রকল্পের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। শুধু দেশে নয় জাপানেও মেট্রোরেল প্রকল্পের কিছু অংশের কাজ হচ্ছে, যেমন- কোচ নির্মাণ কাজ। মেট্রোরেলে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সব কাজই চ্যালেঞ্জিং। তারপরও প্রধান চ্যালেঞ্জ ইতোমধ্যেই সফলভাবে সম্পন্ন করেছি।
তিনি আরো বলেন, মেট্রোরেল প্রকল্প এলাকায় দেখলেই সবাই বুঝতে পারছেন প্রতিনিয়তই পরিবর্তন হচ্ছে। একের পর এক স্প্যান পিলারে বসছে। বর্তমানে স্টেশন নির্মাণ কাজও এগিয়ে যাচ্ছে। আশা করা যাচ্ছে নির্দিষ্ট সময়েই প্রকল্পটির কাজ সম্পন্ন করতে পারবো।
ডিএমটিসিএল সূত্র জানায়, বাংলাদেশের প্রথম মেট্রোরেলের নির্মাণ কাজ সংশোধিত পরিকল্পনা অনুযায়ী পুরোদমে এগিয়ে চলেছে। তবে সার্বিক গড় অগ্রগতি ২৪ দশমিক ১৬ শতাংশ।
ঢাকার যানজট নিরসন ও নগরবাসীর যাতায়াত আরামদায়ক, দ্রুততর ও নির্বিঘ্ন করতে ২০১২ সালে গৃহীত হয় মেট্রোরেল প্রকল্প। এ প্রকল্পের দৈর্ঘ্য হবে উত্তরার দিয়াবাড়ি থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০ দশমিক ১ কিলোমিটার। এ এলাকায় বসবাসকারী লাখো নগরবাসী মেট্রোরেল ব্যবহার করে গন্তব্যে যাতায়াত করতে পারবেন। প্রকল্পে ২৪ সেট ট্রেন চলাচল করবে। প্রত্যেকটি ট্রেনে থাকবে ৬টি করে কার। ঘণ্টায় ১শ’ কিলোমিটার বেগে ছুটবে যাত্রী নিয়ে। উভয়দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ হাজার যাত্রী পরিবহন বহনে সক্ষমতা থাকবে মেট্রোরেলের। প্রকল্পের মোট ব্যয় ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকার মধ্যে প্রকল্প সাহায্য হিসেবে জাইকা ঋণ দিচ্ছে ১৬ হাজার ৫৯৪ কোটি ৫৯ লাখ টাকা।
চলতি বছরেই খুলে যাবে প্যাকেজ-৩ ও প্যাকেজ-৪। এর আওতায় উত্তরা নর্থ থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১১ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট ও ৯টি স্টেশন নির্মাণের কাজ চলছে। উভয় প্যাকেজের কাজ ২০১৭ সালের ১ আগস্ট শুরু হয়েছে। সংশোধিত কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ পুরোদমে এগিয়ে চলছে। ফলে চলতি বছরেই স্বপ্নের মেট্রোরেলে চড়বে ঢাকাবাসী।

মতিহার বার্তা ডট কম – ২২ মে, ২০১৯

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply