শিরোনাম :
ভবন-স্থাপনার সামনে ‘সতর্কতা নোটিশ’ প্রদর্শন করতে হবে বাড়িতে সিসি ক্যামেরা বসিয়ে নারীর মাদক বিক্রি রাজশাহী মহানগরীতে গ্যাস সিলিন্ডার কেটে বিক্রির সময় গ্রেপ্তার ৩ রাজশাহী মহানগরীতে পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার – ১৮ মোহনপুরে বিপুল পরিমান গাঁজা-সহ গ্রেফতার মাদক কারবারী রানবীর জাহান রাজশাহী জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধা সদস্যদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতারণ সিরাজগঞ্জে ছিনতাই চক্রের সক্রিয় ৫জন সদস্য গ্রেফতার চকলেটের প্রলোভনে সাত বছরের শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা রুয়েট কেন্দ্রে ১ম বর্ষ সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন মেস মালিকদের কাছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অসহায়
মুর্তজার ফাঁসি থেকে পিছু হটল সৌদি

মুর্তজার ফাঁসি থেকে পিছু হটল সৌদি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ফাঁসি হচ্ছে না মুর্তাজা কুরেইরিসের৷ ২০২২ সালে মুর্তাজা জেল থেকে ছাড়া পাবে৷ মুর্তাজার বিরুদ্ধে যে সব অভিযোগ আনা হয়েছে তার একটি হল সরাসরি নাশকতায় মদত দেওয়া৷ পুলিশের দাবি, মুর্তাজার বড় ভাই আলি কুরেইরিস আওয়ামিয়া শহরের থানায় পেট্রোল বোমা ছুঁড়েছিলেন৷ সেই সময় তার সঙ্গে ছিল মুর্তাজা। সেই ঘটনার পরে আলিকে মেরে ফেলা হয়৷ মুর্তাজার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার সব অভিযোগ প্রমাণ করতে মরিয়া হয়ে ওঠে সরকার৷

সরকার দাবি জানায়, জেরায় সব স্বীকার করেছে মুর্তাজা৷ যদিও মুর্তাজার পরিবারের অভিযোগ, প্রবল অত্যাচার চালিয়ে জোর করে স্বীকারোক্তি আদায় করা হয়েছে৷ বিচারের নামে প্রহসন চালানো হয়েছে৷ মুর্তাজার কি ফাঁসি হবে ? নাকি তার শিরচ্ছেদ করা হবে প্রকাশ্যে ? ভয়ঙ্কর সেই শাস্তির পদ্ধতি নিয়ে চলে জল্পনা৷ মানবাধিকার সংগঠনগুলি সোচ্চার হতে শুরু করে৷ তাঁর ফাঁসির খবর নিয়ে সৌদি আরবের শিয়া সম্প্রদায়ের মধ্যে বিরোধিতা মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে৷ আন্তর্জাতিক স্তরেও কুরেইরিসের এই বিষয়টি নিয়ে তুমুল তর্ক-বিতর্ক শুরু হয়৷ সেই সব বিরোধিতা-বিতর্ককে মাথায় রেখেই কুরেইরিসকে ফাঁসি না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার৷

সরকারি আধিকারিক জানায়, মুর্তজাকে ফাঁসি না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷ সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত থাকা থেকে শুরু করে আরও বেশ কিছু অভিযোগ ছিল৷ সমকালীন বিশ্বে সবথেকে কনিষ্ঠতম এই বিদ্রোহী মুর্তাজা কুরেইরিস এখন সৌদি জেলে বন্দি৷ অভিযোগ তার যখন ১০ বছর বয়স, তখন সরকার বিরোধী সাইকেল মিছিলে অংশ নিয়েছিল৷ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামেনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এই তথ্য দেয়৷ সেই সঙ্গে অ্যামেনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এও জানায় যে মুর্তাজাকে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তাকে মারদোরও করা হয়৷

প্রসঙ্গত, ২০১১ সালের কথা৷ প্রবল গণ আন্দোলন চলছিল সৌদি আরবে৷ সৌদি রাজতন্ত্র পরিচালিত নির্যাতনের প্রতিবাদে এবং দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য মুর্তাজা কুরেইরিস ও তার বন্ধুরা সাইকেল মিছিল করেছিল৷ দেশের পূর্ব প্রান্তে সেই মিছিল করার সময় সরকারের নজরে আসে তার গতিবিধি৷ তারপর থেকেই মুর্তাজার নাম ছিল পুলিশের খাতায়৷ তিন বছর এমন পর্যবেক্ষণ চলে৷ এরই মাঝে ১৩ বছর বয়স হলে গোপনে সৌদি আরব থেকে প্রতিবেশী রাষ্ট্র বাহারিনে পালিয়ে যাওয়ার সময় পরিবারের অন্যান্যদের সঙ্গে ধরা পড়ে মুর্তাজা৷

মতিহার বার্তা ডট কম  ১৭ জুন  ২০১৯

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply