শিরোনাম :
গোদাগাড়ীতে ১০লাখ টাকার হেরোইন-সহ ৩জন মাদক কারবারী গ্রেফতার নগরীর তালাইমারীতে গাঁজা কারকারী মল্লিক গ্রেফতার রাজশাহীতে প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু রিভার সিটি নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত রুয়েটকে স্মার্ট বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে রুপান্তর করতে হলে সকল ক্ষেত্রে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা জরুরী চিপস্ খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে ৬ বছরের নাবালিকাকে ধর্ষণ চেষ্টা: আসামি নাইম গ্রেফতার এইচএসসি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে আরএমপি’র নোটিশ জারি তানোরে ক্লুলেস হত্যা মামলার পলাতক আসামি ইকবাল গ্রেফতার কৃষিতে বির্পযয়ের আশঙ্কা তানোরে চোরাপথে আশা মানহীন সারে বাজার সয়লাব বাঘায় বাবুল হত্যা মামলায় চেয়ারম্যানসহ ৭ জনকে রিমান্ড শেষে কারাগারে প্রেরণ সিংড়ায় ক্যান্সারে আক্রান্ত ২২ ব্যক্তির মাঝে চেক বিতরণ
রাজশাহীতে ৩ কোটি টাকার সড়ক তিন মাসেই শেষ

রাজশাহীতে ৩ কোটি টাকার সড়ক তিন মাসেই শেষ

রাজশাহীতে ৩ কোটি টাকার সড়ক তিন মাসেই শেষ
রাজশাহীতে ৩ কোটি টাকার সড়ক তিন মাসেই শেষ

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী নগরীর উপকণ্ঠের পৌরসভা কাটাখালী। ২৪ দশমিক ৫০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের পৌরসভাটির জনসংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার।

সরকারি নথিপত্রে দেশের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ পৌরসভা এটি। প্রতি বর্গকিলোমিটারে বসবাস ১ হাজার ৯০০ মানুষের। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের একেবারে পেটের ভেতরে অবস্থিত কাটাখালী পৌরসভাটি পবা উপজেলার আওতাধীন।

সম্প্রতি এই পৌরসভার একটি সড়ক ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। কাটাখালী বাজার থেকে পদ্মা নদীর শ্যামপুর ঘাট পর্যন্ত দক্ষিণমুখী সড়কটির ভয়াবহ ছবি ফেসবুকে পোস্ট দেন পৌরসভার বাসিন্দারা।

ক্ষতবিক্ষত সড়কটির কারণে পৌরসভার সাতটি মহল্লার হাজার হাজার বাসিন্দা নিজেরা কীভাবে চরম দুর্ভোগ পড়েছেন-তারই বিবরণ উঠে এসেছে এসব পোস্টে।

একজন বাসিন্দা আক্ষেপ করে লিখেছেন, শুধু একটি সড়কের করুণ পরিস্থিতির কারণে এলাকার মেয়েদের বিয়ে-শাদি দিতেও কষ্ট পেতে হয় অভিভাবকদের।

ভয়ংকর এই সড়ক দেখে কেউ এদিকে বিয়ে করতে রাজি হয় না। কাটাখালীবাসীর দুঃখের দিন শেষ হবে কবে-এমন শত শত মন্তব্য এসেছে বিভিন্ন পোস্টে।

সরেজমিনে দেখা যায়, কাটাখালী বাজার থেকে শ্যামপুর ঘাট পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার সড়কটি দিয়ে শ্যামপুর, দেওয়ানপাড়া, বাখরাবাজ, শ্যামপুর বাখরাবাজ, কাটাখালী, চরপাড়াসহ সাতটি গ্রামের মানুষকে নিয়মিত চলাচল করতে হয়। আসা-যাওয়া করতে হয় রাজশাহীসহ বিভিন্ন স্থানে। কিন্তু বালুবাহী দানব ট্রাকের দাপটে তারা সড়ক দিয়ে চলতে পারেন না। অটোরিকশা থেকে সিএনজি-কোনো যান্ত্রিক যান এই পথে যেতে চায় না। ফলে লোকজনকে বাধ্য হয়ে হেঁটেই চলতে হয়। বর্ষায় জমে হাঁটু কাদাপানি। আর গ্রীষ্মে হাঁটু পরিমাণ ধুলাবালি। মোটরসাইকেল মালিকরা কাটাখালী বাজারে গাড়ি রেখে গায়ের পোশাক খুলে তিন-চার কিলোমিটার হেঁটেই বাসাবাড়িতে পৌঁছান। বছরজুড়েই সড়কটি কাদাপানি ও ধুলায় ডুবে থাকে।

পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, গত বছর মার্চে বরখাস্ত মেয়র আব্বাস আলী প্রায় তিন কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কটি পাকা করেছিলেন। কিন্তু তিন মাসও টেকেনি।

পৌরসভার বাসিন্দা আফজাল হোসেন বলেন, শ্যামপুরে পদ্মায় জেলা প্রশাসনের ইজারা দেওয়া একটি বালুঘাট আছে। প্রতিদিন এই ঘাট থেকে এ সড়কপথে এক হাজারের বেশি বালু ট্রাক ও ভারী ডাম্পার চলাচল করে।

আবার এ সড়কটি পৌরসভা দুই কোটি ৪ লাখ টাকায় ইজারা দিয়েছে। ইজারাদার বালু ট্রাক থেকে টোল উত্তোলন করেন। যদিও সড়ক ইজারার ৪০ লাখ টাকা বরখাস্ত মেয়র আব্বাস আলী পৌর তহবিলে জমা করেননি।

পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর বোরহান উদ্দিন রাব্বানী ও ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইয়াসিন আলী মোল্লাহ বলেন, অন্যের লাইসেন্সে বরখাস্ত মেয়র আব্বাসই সড়কটি করেছিলেন। সাত দিন যেতে না যেতেই সড়কটি নষ্ট হতে শুরু করে। তিন মাসের ভেতরে ছাল-বাকল উঠে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়। সড়কটি পুনঃসংস্কারের জন্য আমরা মন্ত্রণালয়ের কাছে টাকা চেয়েছিলাম। কিন্তু মন্ত্রণালয় বলে দিয়েছে তিন বছরের আগে এই সড়কে কোনো টাকা বরাদ্দ দেওয়া যাবে না। এভাবেই পৌরবাসীকে আরও তিন বছর দুর্ভোগ মাথায় নিয়েই চলতে হবে।

দুর্ভোগকবলিত দেওয়ানপাড়া গ্রামের বাসিন্দা কামরুল হাসান বলেন, জেলা প্রশাসন যতদিন না শ্যামপুর বালুঘাটের ইজারা বাতিল করছে-ততদিন কাটাখালীর সাত গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ কমবে না।

শ্যামপুর গ্রামের বাসিন্দা বেগম নুরুন নাহার বলেন, এই এলাকায় কেউ না এলে এখানকার মানুষের দুর্ভোগ বুঝতে পারবে না। সড়কটির এ বেহাল পরিস্থিতির কারণে ছেলেমেয়েদের স্কুল-কলেজে যেতে যে কী দুর্ভোগ পোহাতে হয়-তা বলে বোঝানো যাবে না। এ সড়কের কারণে অনেকেই বাজারে বাড়ি ভাড়া নিয়ে বসবাস করছেন।

দুর্ভোগকবলিত সড়কটি সম্পর্কে জানতে চাইলে কাটাখালী পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র আনোয়ার সাদাত নান্নু বলেন, কীভাবে এলাকাবাসীর দুর্ভোগ কমানো যায়, সেই চেষ্টাই করছি।

মতিহার বার্তা / ইএবি

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply