শিরোনাম :
এবার দুদকের হাতে আটক ঢাকা ব্যাংকের কর্মকর্তা

এবার দুদকের হাতে আটক ঢাকা ব্যাংকের কর্মকর্তা

মতিহার বার্তা ডেস্ক : ঢাকা ব্যাংক ফেনী শাখার প্রিন্সিপাল অফিসার ও ক্রেডিট ইনচার্জ গোলাম সাঈদ রাশেবকে গ্রেফতার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আটকের পর বুধবার তিনি আদালতে প্রায় ৬ কোটি টাকা আত্মসাতের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মঙ্গলবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দুদক নোয়াখালী জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম রাজধানীর পুরানা পল্টনে স্কাউট ভবনের সামনে থেকে রাশেবকে গ্রেফতার করে। রাতে তাকে নোয়াখালী এনে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বুধবার ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট জাকির হোসাইনের আদালতে হাজির করা হয়। এরপর রাশেব ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন। জবানবন্দীতে প্রায় ৬ কোটি টাকা আত্মাসাতের বিবরণ দেন তিনি।

দুদকের পক্ষে আইনজীবী শরফুদ্দিন মাহমুদ মানিক ও নুরুল ইসলাম মজুমদার সোহাগ ছাড়াও ঢাকা ব্যাংকের ফেনী শাখার ব্যবস্থাপক সালেহ ইমরান আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে ঢাকা ব্যাংক ফেনী শাখার ব্যবস্থাপক মোঃ আকতার হোসাইন সরকারকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। নতুন ব্যবস্থাপক পদে সালেহ ইমরান বুধবার যোগদান করেছেন।

সূত্র আরো জানায়, রাশেব ও একই শাখার ক্যাশিয়ার আবদুস সামাদ পরস্পর যোগসাজসে ব্যাংকের উক্ত শাখার গ্রাহকদের কাছ থেকে বিভিন্ন উপায়ে অন্তত ১৫ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। বিষয়টি জানাজানি হলে গত ১৩ মার্চ থেকে রাশেব আত্মগোপনে চলে যায়। ইতোমধ্যে পূর্ববর্তী ব্যাংক ম্যানেজার মোঃ আকতার হোসাইন সরকার বাদী হয়ে অভিযুক্ত কর্মকর্তা রাশেব ও ক্যাশিয়ার আবদুস সামাদকে আসামী করে ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

বিভিন্ন উপায়ে অভিযুক্ত কর্মকর্তা ব্যাংক থেকে অন্তত ৭ কোটি ৮ লাখ ৪০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়। এছাড়া অজয় কুমার বণিক নামের শহরের এক ব্যবসায়ী ফেনী মডেল থানায় আরেকটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ডায়েরিতে তিনি উল্লেখ করেন, আলোচিত ব্যাংক কর্মকর্তা রাশেব তার একাউন্ট হ্যাকড করে ৬৯ লাখ টাকা সরিয়ে নিয়েছে।

একইভাবে বেশ কয়েকজন গ্রাহক ব্যাংক ম্যানেজারের নিকট লিখিত অভিযোগ করেন।

এদিকে দুদক নোয়াখালী কার্যালয়ের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর হোসাইন নয়া দিগন্ত অনলাইনকে জানান, স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে রাশেবের দেয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০দিনের রিমান্ড চাওয়া হবে।

ঢাকা ব্যাংক ফেনী শাখার প্রিন্সিপাল অফিসার ও ক্রেডিট ইনচার্জ গোলাম সাঈদ রাশেবকে ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। কিভাবে গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট হ্যাকড করে টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে তা উদ্ধারের চেষ্টা করছে কর্তৃপক্ষ। তার সাথে একই শাখার ক্যাশিয়ার আবদুস সামাদকেও ডেকে নেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, দুইজন পরস্পর যোগসাজশে ব্যাংকের ওই শাখার গ্রাহকদের কাছ থেকে বিভিন্ন উপায়ে অন্তত ১৫ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। বিষয়টি জানাজানি হলে ১৩ মার্চ থেকে রাশেব আত্মগোপনে চলে যায়। এরপর টানা তিন দিন ব্যাংক ছুটির পর সোমবার বিষয়টি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে গ্রাহকদের মাঝে ক্ষোভ ও উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে।

ইতোমধ্যে ব্যাংক ম্যানেজার মো: আকতার হোসাইন সরকার বাদি হয়ে অভিযুক্ত কর্মকর্তা রাশেব ও ক্যাশিয়ার আবদুস সামাদকে আসামি করে গতকাল মঙ্গলবার রাতে মামলা দায়ের করেন। রাশেব বিভিন্ন উপায়ে ব্যাংক থেকে অন্তত ৭ কোটি ৮ লাখ ৪০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

এদিকে গতকাল বুধবার অজয় কুমার বণিক নামের শহরের এক ব্যবসায়ী ফেনী মডেল থানায় আরেকটি সাধারণ ডায়েরি করেন। তিনি উল্লেখ করেন, আলোচিত ব্যাংক কর্মকর্তা রাশেব তার অ্যাকাউন্ট হ্যাকড করে ৬৯ লাখ টাকা সরিয়ে নিয়েছে। একইভাবে বেশ কয়েকজন গ্রাহক ব্যাংক ম্যানেজারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন।

ম্যানেজার মো: আকতার হোসাইন সরকার জানান, ইতোমধ্যে ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় থেকে একটি টিম ফেনী এসে ঘটনাটি তদন্ত করেছেন। রাশেব ও আবদুস সামাদকে জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অপর দিকে ঢাকা ব্যাংক ফেনী শাখার ঘটনায় অপরাপর ব্যাংকের গ্রাহকদের মধ্যেও উৎকণ্ঠা ছড়িয়ে পড়ে। গত দুই দিন শহরের বিভিন্ন ব্যাংকে টাকা উত্তোলনের হিড়িক পড়ে যায়। সুত্র: নয়া দিগন্ত

মতিহার বার্তা ডট কম ০৩ এপ্রিল ২০১৯

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *