শিরোনাম :
রাজশাহীতে বালু মজুদ করতে ১০ একর জমির কাঁচা ধান সাবাড় বিশ্বের দীর্ঘতম গাড়িতে রয়েছে সুইমিং পুল, হেলিপ্যাডও ছুটির দিনে হেঁশেলে খুব বেশি সময় কাটাতে চান না? রবিবারে পেটপুজো হোক তেহারি দিয়েই দাম দিয়ে ছেঁড়া, রংচটা জিন্‌স কিনবেন কেন? উপায় জানা থাকলে নিজেই বানিয়ে ফেলতে পারেন উন্মুক্ত বক্ষখাঁজ, খোলামেলা পিঠ, ভূমির মতো ব্লাউজ় পরেই ভিড়ের মাঝে নজরে আসতে পারেন আপনিও স্পর্শকাতর ত্বকের জন্য বাড়িতেই স্ক্রাব তৈরি করে ফেলতে পারেন, কিন্তু কতটা চালের গুঁড়ো দেবেন? গরমে শরীর তো ঠান্ডা করবেই সঙ্গে ত্বকেরও যত্ন নেবে বেলের পানা, কী ভাবে বানাবেন? গাজ়া এবং ইরানে হামলা চালাতে ইজ়রায়েলকে ফের ৮ হাজার কোটি টাকার অস্ত্রসাহায্য আমেরিকার! ইজ়রায়েলকে জবাব দিতে সর্বোচ্চ নেতার ফতোয়ার কথাও ভুলতে চায় ইরান, এ বার কি পরমাণু যুদ্ধ? দিনাজপুরে ড্রাম ট্রাকসহ ১০০ কেজি গাঁজা জব্দ, গ্রেপ্তার ৩
ওয়ার্নার-স্মিথ ফেরায় বেড়েছে শক্তি,

ওয়ার্নার-স্মিথ ফেরায় বেড়েছে শক্তি,

ক্রীড়া ডেক্স: পাঁচবারের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন তারা। বিশ্বকাপ জয়ের হ্যাটট্রিকও রয়েছে তার মধ্যে। আর তাই বিশ্বকাপ এলেই এই দলকে আলাদা করে সমীহ করতে হয়। এ বারও বিশ্বকাপ জয়ের লক্ষ্যেই ইংল্যান্ডে পা দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ওয়ার্নার ও স্মিথ দলে ফিরে আসায় এই দল বেশ শক্তিশালী। দেখে নেওয়া যাক, কেমন হয়েছে এ বারের অস্ট্রেলিয়া দল।

এ বার ১৬ জনের দল নিয়ে ইংল্যান্ডে এসেছে অস্ট্রেলিয়া। দলের অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। গত বছর ‘স্যান্ড পেপারগেট’ কান্ডে স্মিথ নির্বাসনে যাওয়ার পর থেকে ফিঞ্চকে অধিনায়ক করা হয়েছিল।

স্মিথ ফিরে এলেও এ বছর বিশ্বকাপে অধিনায়কত্ব করবেন ফিঞ্চ। ঘরোয়া ক্রিকেটে অধিনায়কত্ব করার অভিজ্ঞতা থাকলেও আন্তর্জাতিক স্তরে ফিঞ্চের অভিজ্ঞতা অন্য অনেকের থেকে খানিকটা কম। এটা সমস্যায় ফেলতে পারে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের।

এ বারের অস্ট্রেলিয়া দল ১৬ জনের। সাত ব্যাটসম্যান, এক উইকেট কিপার ও আট বোলারকে নিয়ে স্কোয়াড তৈরি করা হয়েছে। ইংল্যান্ডের পরিবেশের কথা মাথায় রেখেই দলে বেশি বোলার নেওয়া হয়েছে।

ওয়ার্নার ও স্মিথ নির্বাসনে যাওয়ায় নিজেদের কম্বিনেশন ভাঙতে বাধ্য হয়েছিল অজিরা। গত এক বছর ধরে দলের ওপেনার খোয়াজা ও ফিঞ্চ। কখনও বা খোয়াজা ও শন মার্শকে দিয়েও ওপেনিং করা হয়েছে। কিন্তু ওয়ার্নার দলে ফেরায় তাঁকে ওপেনিং করাতেই হবে।

সেক্ষেত্রে ওপেনিং কম্বিনেশন ভাঙতে হবে তাঁদের। আবার মিডল অর্ডারে স্মিথ ফিরে আসায় সেখানেও কিছু বদল হতে পারে। অর্থাৎ দলে ব্যাটিং অর্ডারে বদল আসতে পারে। সে ক্ষেত্রে গত এক বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে খেলে আসা কোনও ক্রিকেটারকে বসতে হতে পারে। কারণ দুই অলরাউন্ডার ম্যাক্সওয়েল ও স্টয়নিসকে খেলাতে চায় অজি ম্যানেজমেন্ট।

অস্ট্রেলিয়ার বোলিং আক্রমণ থাকে মূলত পেস নির্ভর। এ বারেও তার ব্যতিক্রম নেই। অভিজ্ঞ মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিংস, কুল্টার নাইলদের পাশাপাশি তরুণ কেন রিচার্ডসন, ঝ্যে রিচার্ডসন, জেসন বেহেরনড্রফরা রয়েছেন।

অভিজ্ঞ লিও ও তরুন অ্যাডাম জাম্পার মতো দুই স্পিনার এ বার নিজেদের স্কোয়াডে রেখেছে অস্ট্রেলিয়া। তাই বলা যায়, অস্ট্রেলিয়ার বোলিং লাইন আপ যথেষ্ট শক্তিশালী।

মতিহার বার্তা ডট কম  ২৪ মে ২০১৯

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply