শিরোনাম :
গোদাগাড়ীতে ১০লাখ টাকার হেরোইন-সহ ৩জন মাদক কারবারী গ্রেফতার নগরীর তালাইমারীতে গাঁজা কারকারী মল্লিক গ্রেফতার রাজশাহীতে প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু রিভার সিটি নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত রুয়েটকে স্মার্ট বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে রুপান্তর করতে হলে সকল ক্ষেত্রে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা জরুরী চিপস্ খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে ৬ বছরের নাবালিকাকে ধর্ষণ চেষ্টা: আসামি নাইম গ্রেফতার এইচএসসি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে আরএমপি’র নোটিশ জারি তানোরে ক্লুলেস হত্যা মামলার পলাতক আসামি ইকবাল গ্রেফতার কৃষিতে বির্পযয়ের আশঙ্কা তানোরে চোরাপথে আশা মানহীন সারে বাজার সয়লাব বাঘায় বাবুল হত্যা মামলায় চেয়ারম্যানসহ ৭ জনকে রিমান্ড শেষে কারাগারে প্রেরণ সিংড়ায় ক্যান্সারে আক্রান্ত ২২ ব্যক্তির মাঝে চেক বিতরণ
রাজশাহীতে স্বামীর দেওয়া আগুনে মৃত্যুর মুখে স্কুল শিক্ষিকা

রাজশাহীতে স্বামীর দেওয়া আগুনে মৃত্যুর মুখে স্কুল শিক্ষিকা

রাজশাহীতে স্বামীর দেওয়া আগুনে মৃত্যুর মুখে স্কুল শিক্ষিকা
রাজশাহীতে স্বামীর দেওয়া আগুনে মৃত্যুর মুখে স্কুল শিক্ষিকা

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীতে সাদিকুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে তাঁর স্ত্রীর (স্কুল শিক্ষকা ) শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (৫ জানুয়ারী) দিবাগত রাত ১টার দিকে নগরীর রাজপাড়া থানার বুলনপুর ঘোষপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর ফাতেমা খাতুন (৩৭) নামের ওই নারীকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ফাতেমা শহরের মহিষবাথান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

ঘটনার পর থেকে তাঁর স্বামী সাদিকুল ইসলাম পলাতক রয়েছেন। সাদিকুলের বাবা সাজ্জাদ হোসেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর। আগুনে ফাতেমার হাত, মুখ ও বুক পুড়ে গেছে।

আহতের ছোট বোন নুরজাহান খাতুন বলেন, ‘আমার বোনের এক ছেলে ও এক মেয়ে। মেয়েটি এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। ছেলেটি সপ্তম শ্রেণির ছাত্র। সাদিকুল ইসলাম বেকার। মাঝে মাঝেই তিনি ফাতেমাকে নির্যাতন করতেন। দুই সন্তানের কথা ভেবে সব সহ্য করত আমার বোন।

বুধবার রাতে কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই শরীরে কেরোসিন ঢেলে সাদিকুল আমার বোন ফাতেমার শরীরে আগুন লাগিয়ে দেয়। পরে ফাতেমাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। নুরজাহান খাতুন আরও বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমরা মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

রামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের প্রধান ডা. আফরোজা নাজনীন বলেন, ‘বার্ন ইউনিটে কোনো বেড খালি নেই। রোগীর চাপে ওয়ার্ডের সামনে বারান্দায়ও জায়গা নেই। ফাতেমাকে মেঝেতেই রাখা হয়েছে। তাঁর শরীরের ২৫ শতাংশ ‘মিক্সড বার্ন’ হয়েছে। এর মানে, কোনো স্থানে গভীর ক্ষত হয়েছে আবার কোনো স্থানের শুধু চামড়া পুড়েছে। তাঁর মুখম-ল, হাত, বুক পুড়ে যাওয়া ছাড়াও শ্বাসনালি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। শারীরিক অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক।’

এ ব্যাপারে জানতে সাদিকুল ইসলামের মোবাইলে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তাঁর নম্বরটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

নগরীর রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘ঘটনাটি আমি শুনেছি। ঘটনার পর থেকেই ফাতেমা খাতুনের স্বামী সাদিকুল ইসলাম পলাতক রয়েছেন। তাঁকে আটকের চেষ্টা চলছে’।

মতিহার বার্তা / ইএবি

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply