শিরোনাম :
গোদাগাড়ীতে ১০লাখ টাকার হেরোইন-সহ ৩জন মাদক কারবারী গ্রেফতার নগরীর তালাইমারীতে গাঁজা কারকারী মল্লিক গ্রেফতার রাজশাহীতে প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু রিভার সিটি নিয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত রুয়েটকে স্মার্ট বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে রুপান্তর করতে হলে সকল ক্ষেত্রে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা জরুরী চিপস্ খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে ৬ বছরের নাবালিকাকে ধর্ষণ চেষ্টা: আসামি নাইম গ্রেফতার এইচএসসি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে আরএমপি’র নোটিশ জারি তানোরে ক্লুলেস হত্যা মামলার পলাতক আসামি ইকবাল গ্রেফতার কৃষিতে বির্পযয়ের আশঙ্কা তানোরে চোরাপথে আশা মানহীন সারে বাজার সয়লাব বাঘায় বাবুল হত্যা মামলায় চেয়ারম্যানসহ ৭ জনকে রিমান্ড শেষে কারাগারে প্রেরণ সিংড়ায় ক্যান্সারে আক্রান্ত ২২ ব্যক্তির মাঝে চেক বিতরণ
রিজভীর নির্বুদ্ধিতায় জেলে যেতে পারেন দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ, বিব্রত নেতারা!

রিজভীর নির্বুদ্ধিতায় জেলে যেতে পারেন দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ, বিব্রত নেতারা!

মতিহার বার্তা ডেস্ক : মুজিব কোট খুলে নেয়া ও পাঞ্জাবি ছিঁড়ে দেয়ার অভিযোগ এনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন করা হয়েছে। রোববার (৫ মে) জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এবি সিদ্দিকী এই মামলার আবেদন করেন।

মামলায় তারেক ছাড়া অপর আসামিরা হলেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু চৌধুরী, খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। এদিকে ক্ষমতাসীন দলের একজন নেতাকে দলীয় কর্মীদের মাধ্যমে হেনস্তা করে অহেতুক মামলার আসামি হওয়ায় বিব্রত হয়েছেন বিএনপি নেতারা। এই দুঃসময়ে নতুন মামলার জালে আটকা পড়লে দলীয় রাজনীতি করাটা দুষ্কর হয়ে পড়বে বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন তারা। বিএনপির দু’জন নেতা যারা এই মামলার আসামি হয়েছেন, তাদের সাথে কথা বলে এমন হতাশার বিষয়ে জানা গেছে।

দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু চৌধুরী ক্ষোভ নিয়েই বলেন, জানতে পেরেছি, রিজভীর নির্দেশে তার অনুগামী ৪-৫ জন নেতা আওয়ামী লীগের এক নেতাকে হেনস্তা করেছেন। দেশে যে রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট তাতে ক্ষমতাসীন দলের নেতার গায়ে হাত দেয়ার অর্থ খাল কেটে কুমির আনা। অতি-উৎসাহী রিজভী আহমেদ মাঝে-মধ্যে এমন সব যুক্তিহীন কাজ করেন যার কারণে দল সর্বোপরি সকলকে ভুক্তভোগী হতে হয়।

তিনি আরো বলেন, এসব করে বিএনপির কোনো উপকার হবে না, বরং চাপ বাড়বে। রিজভীর মতো নেতারা ভুলভাল কাজ করে অযথা খাল কেটে কুমির আনেন। এখন এই মামলায় আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে দলের অভ্যন্তরে। আমাদের কপালটাই খারাপ।

রিজভী আহমেদের উপর ক্ষোভ প্রকাশ করে অভিযোগের অপর আসামি খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ক্ষমতাসীন দলের একজন নেতাকে মারধর করে দেশ উদ্ধার করা যাবে না। এসবের কি দরকার ছিলো তা আমার মাথায় ধরে না। এসব ছেলেমানুষি করার জন্যই দলের এই অবস্থা? রিজভীকে নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে আগামীতে দলের দুর্গতি আরো বাড়বে।সূত্র: বাংলা নিউজ ব্যাংক

মতিহার বার্তা ডট কম – ০৬ মে, ২০১৯

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply