শিরোনাম :
রাজশাহীতে বালু মজুদ করতে ১০ একর জমির কাঁচা ধান সাবাড় বিশ্বের দীর্ঘতম গাড়িতে রয়েছে সুইমিং পুল, হেলিপ্যাডও ছুটির দিনে হেঁশেলে খুব বেশি সময় কাটাতে চান না? রবিবারে পেটপুজো হোক তেহারি দিয়েই দাম দিয়ে ছেঁড়া, রংচটা জিন্‌স কিনবেন কেন? উপায় জানা থাকলে নিজেই বানিয়ে ফেলতে পারেন উন্মুক্ত বক্ষখাঁজ, খোলামেলা পিঠ, ভূমির মতো ব্লাউজ় পরেই ভিড়ের মাঝে নজরে আসতে পারেন আপনিও স্পর্শকাতর ত্বকের জন্য বাড়িতেই স্ক্রাব তৈরি করে ফেলতে পারেন, কিন্তু কতটা চালের গুঁড়ো দেবেন? গরমে শরীর তো ঠান্ডা করবেই সঙ্গে ত্বকেরও যত্ন নেবে বেলের পানা, কী ভাবে বানাবেন? গাজ়া এবং ইরানে হামলা চালাতে ইজ়রায়েলকে ফের ৮ হাজার কোটি টাকার অস্ত্রসাহায্য আমেরিকার! ইজ়রায়েলকে জবাব দিতে সর্বোচ্চ নেতার ফতোয়ার কথাও ভুলতে চায় ইরান, এ বার কি পরমাণু যুদ্ধ? দিনাজপুরে ড্রাম ট্রাকসহ ১০০ কেজি গাঁজা জব্দ, গ্রেপ্তার ৩
সমকামিতায় বাধ্য করানোয় জীবন গেল বিএনপি নেতার, ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী

সমকামিতায় বাধ্য করানোয় জীবন গেল বিএনপি নেতার, ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী

মতিহার বার্তা ডেস্ক : বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে সীমাহীন লুটপাট, চুরি-দুর্নীতি, রাষ্ট্রীয় সম্পদ তছরুপ করার মতো গুরুতর অভিযোগ নতুন নয়। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে নানা অসামাজিক, দৃষ্টিকটু ও ন্যক্কারজনক কাজ করে দেশবাসীকে প্রায়শই বিব্রত করেন বিএনপি নেতারা।

এবার এক কিশোরকে জোরপূর্বক সমকামিতায় বাধ্য করানোর অভিযোগ উঠেছে এক নেতার বিরুদ্ধে। অবশ্য সমকামিতার জন্য শেষ পর্যন্ত ভিকটিমের হাতে জীবন দিতে হয়েছে সেই বিএনপি নেতাকে। এমন ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায়। বিএনপি নেতার এমন ঘৃণ্য ও অসামাজিক অপরাধের জন্য এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়েছে।সূত্র: বাংলা নিউজ ব্যাংক

জানা গেছে, বিএনপি নেতা নুরুল ইসলামকে (৫৫) ইট দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে এক কিশোর। সমকামিতায় বাধ্য করার ক্ষোভ থেকেই গত ১০ জুন রাতে ওই কিশোর ইট দিয়ে আঘাতের পর আঘাত করে হত্যা করে বিএনপি নেতাকে। ওই শ্রমিক দল নেতার বিরুদ্ধে এলাকার আরও কয়েক জনের সঙ্গেও সমকামিতায় লিপ্ত হওয়ারও অভিযোগ রয়েছে। নুরুল ইসলামের মতো বিকৃত মস্তিষ্কের নেতার কুকর্মের কারণে অত্র এলাকায় বিএনপির প্রতি অশ্রদ্ধা ও অভক্তি দ্বিগুণ হচ্ছে বলেও জানা গেছে।

এদিকে বিএনপি নেতাদের নৈতিক স্খলনের বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে একজন সমাজ বিজ্ঞানী বলেন, রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপি শুরু থেকেই বিতর্কিত। এই দলটির নেতা-কর্মীরাও বিভিন্ন সময়ে দেশ ও সমাজবিরোধী অপকর্মের জন্য সমালোচিত। এই দলটির নেতাদের বিরুদ্ধে চুরি-ডাকাতি, ছিনতাই, হত্যা, ধর্ষণ ও রাষ্ট্রীয় সম্পদ লুটের মতো অনেক গুরুতর অভিযোগ আছে। দলের চেয়ারপারসন ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান-এই দুজনই তো দুর্নীতির মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামি। সুতরাং, এমন পথভ্রষ্ট রাজনৈতিক দলের নেতারা যে ঘৃণ্য অপরাধে করতে পারেন, সেটি নিয়ে সন্দেহ নেই।

তিনি আরো বলেন, সমকামিতার মতো সামাজিক অপরাধে জড়ানো সেই নেতা দল হিসেবে পুরো বিএনপির নৈতিক ও সামাজিক অবক্ষয়ের চিত্র তুলে ধরেছেন। বিএনপি যে অপরাধী, মস্তিষ্ক বিকৃত ও লুটেরা দল, সেটি আবারও প্রমাণিত হলো।

মতিহার বার্তা ডট কম – ২০ জুন, ২০১৯

খবরটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply